CSE-India


সিএসই প্রযুক্তি

কলকাতা স্টক এক্সচেঞ্জে অন-লাইন কম্পিউটারাইজড ট্রেডিং সিস্টেম

সিএসই প্রযুক্তি

ক্যালকাটা স্টক এক্সচেঞ্জ ১৯৯৭ সালে একটি সম্পূর্ণ কম্পুটারআইসড অনলাইন বাণিজ্যিক পদ্ধতি প্রয়োগ করেছে যা সিএসসি অনলাইন স্ক্রিন-বেসড ট্রেডিং এন্ড রিপোর্টং সিস্টেম (C-STAR)নামে পরিচিত। এর প্রধান সিস্টেম হার্ডওয়ারটি হোল টেণ্ডেম (TANDEM)৭৪০০০ শ্রেণীর মেশিন এবং যার নির্দিষ্ট সফটওয়ারগুলি প্রস্তুত করা হয়েছে সিএমসি লিমিটেডের দ্বারা । এই সুবিধা কলকাতা এবং ভারতের বিভিন্ন স্থানে এবং প্রান্তদেশগুলির লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক (LAN)এবং ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্ক (WAN)উভয় স্থানের দালালি অফিস গুলির যোগাযোগের সুবিদার্থে করা হয়েছে। এই লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্কের প্রত্যেকটি মেশিন ফাইবার অপটিক তারের সাহায্যে প্রধান মেশিনটির সাথে যুক্ত থাকে যা “স্টেট-অফ-দি-আর্ট” ব্যবস্থা। এই প্রকার যোগাযোগ ব্যবস্থায় কোন প্রকার অসুবিধা বা ব্যর্থতা না আসার জন্য একটি ডুয়েল রিং টোপোলোজির ব্যাবহার করা হয়। ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্কটি রাউটার বা মোডেম এর সাহায্যে একটি পত্তনী সার্কিট এর মধ্যে কাজ করে। সিএসসি এই বাণিজ্যি এবং এর সংশ্লিষ্ট কার্য সম্পাদনের জন্য একটি উচ্চ মানের ত্রুটি সংশোধন পদ্ধতি ব্যাবহার করে। এটি হোল সি-স্টার অনলাইন ট্রেডিং সিস্টেমের জন্য ব্যবহৃত অখণ্ড এস ৭৪০০০ পদ্ধতি। এই সম্পূর্ণ পদ্ধতিটি আর ও আই এবং টি সি ও , সর্ব প্রকার কার্যোদ্ধার, আপোষহীন কর্মক্ষমতা সম্পাদনের কথা মাথায় রেখে পরিকল্পনা করা হয়েছে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলার / অপ্রত্যাশিত দুর্যোগ এড়াতে একটি অতিরিক্ত “দুর্যোগ মুক্ত পদ্ধতি” টেণ্ডেম ৭৪০০০ শ্রেণীর মেশিনে স্থাপন করা হয়েছে। প্রত্যেকটি দালালি অফিসগুলিতে রঙিন (সম্পূর্ণ ভিজিএ) ইন্টেল পেন্টিয়াম এর নিজস্ব কম্পিউটার এবং মাইক্রোসফট উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহৃত হয়। দৈবাৎ কোন নিধি পরিবর্তন অথবা জরুরি কাজের জন্য ৫০ জন দালাল নিযুক্ত থাকেন সদস্যদের সাহায্যার্থে (আগে এক্ষেত্রে ২০০ জনকে নিয়োগ করা হত)। এই সম্পূর্ণ প্রোজেক্টটি সম্পন্ন করেছে সি এম সি লিমিটেড।

১৯৯৭ সালের ২৬ শে ফেব্রুয়ারি ১০১ টি “বি” গ্রুপ এর অনির্দিষ্ট স্ক্রিপ অন লাইন বাণিজ্যে প্রকাশ করা হয়, এবং এটির উদ্বোধন করেছিলেন তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গের মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী শ্রী জ্যোতি বসু। পরবর্তী কালে “বি” শাখার বাকি স্ক্রিপ এবং অনুমোদিত শাখার স্ক্রিপ গুলি (আনুমানিক ৩৫০০ টি) স্থানান্তরিত করা হয় সি-স্টার সিস্টেমে এবং তা ৭ই মার্চ, ১৯৯৭ থেকে কার্যকারী হয়। পরিশেষে “এ” শাখার সমস্ত নির্দিষ্ট জমানত সি-স্টার পদ্ধতিতে স্থানান্তরিত করা হয় এবং তা কার্যকারী হয় ৪ঠা এপ্রিল ১৯৯৭ তে। পরিশেষে আনুমানিক ৯০ বছরের পুরনো বাণিজ্যিক পদ্ধতির পরিসমাপ্তি ঘটে। বিনিয়োগকারীদের কাছে অনলাইন বাণিজ্যি অনেক বেশি সুবিধেজনক কারন এটি সমস্ত প্রকার লেনদেনের ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ স্বচ্ছতা বজায় রাখে এবং এক্ষেত্রে সহজে ভুল সংশোধন করা হয় মূল কম্পুটারটির দ্বারা।ক্যালকাটা স্টক এক্সচেঞ্জ ১৯৯৭ সালে একটি সম্পূর্ণ কম্পুটারআইসড অনলাইন বাণিজ্যিক পদ্ধতি প্রয়োগ করেছে যা সিএসসি অনলাইন স্ক্রিন-বেসড ট্রেডিং এন্ড রিপোর্টং সিস্টেম (C-STAR)নামে পরিচিত। এর প্রধান সিস্টেম হার্ডওয়ারটি হোল টেণ্ডেম (TANDEM)৭৪০০০ শ্রেণীর মেশিন এবং যার নির্দিষ্ট সফটওয়ারগুলি প্রস্তুত করা হয়েছে সিএমসি লিমিটেডের দ্বারা । এই সুবিধা কলকাতা এবং ভারতের বিভিন্ন স্থানে এবং প্রান্তদেশগুলির লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক (LAN)এবং ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্ক (WAN)উভয় স্থানের দালালি অফিস গুলির যোগাযোগের সুবিদার্থে করা হয়েছে। এই লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্কের প্রত্যেকটি মেশিন ফাইবার অপটিক তারের সাহায্যে প্রধান মেশিনটির সাথে যুক্ত থাকে যা “স্টেট-অফ-দি-আর্ট” ব্যবস্থা। এই প্রকার যোগাযোগ ব্যবস্থায় কোন প্রকার অসুবিধা বা ব্যর্থতা না আসার জন্য একটি ডুয়েল রিং টোপোলোজির ব্যাবহার করা হয়। ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্কটি রাউটার বা মোডেম এর সাহায্যে একটি পত্তনী সার্কিট এর মধ্যে কাজ করে। সিএসসি এই বাণিজ্যি এবং এর সংশ্লিষ্ট কার্য সম্পাদনের জন্য একটি উচ্চ মানের ত্রুটি সংশোধন পদ্ধতি ব্যাবহার করে। এটি হোল সি-স্টার অনলাইন ট্রেডিং সিস্টেমের জন্য ব্যবহৃত অখণ্ড এস ৭৪০০০ পদ্ধতি। এই সম্পূর্ণ পদ্ধতিটি আর ও আই এবং টি সি ও , সর্ব প্রকার কার্যোদ্ধার, আপোষহীন কর্মক্ষমতা সম্পাদনের কথা মাথায় রেখে পরিকল্পনা করা হয়েছে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলার / অপ্রত্যাশিত দুর্যোগ এড়াতে একটি অতিরিক্ত “দুর্যোগ মুক্ত পদ্ধতি” টেণ্ডেম ৭৪০০০ শ্রেণীর মেশিনে স্থাপন করা হয়েছে। প্রত্যেকটি দালালি অফিসগুলিতে রঙিন (সম্পূর্ণ ভিজিএ) ইন্টেল পেন্টিয়াম এর নিজস্ব কম্পিউটার এবং মাইক্রোসফট উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহৃত হয়। দৈবাৎ কোন নিধি পরিবর্তন অথবা জরুরি কাজের জন্য ৫০ জন দালাল নিযুক্ত থাকেন সদস্যদের সাহায্যার্থে (আগে এক্ষেত্রে ২০০ জনকে নিয়োগ করা হত)। এই সম্পূর্ণ প্রোজেক্টটি সম্পন্ন করেছে সি এম সি লিমিটেড।

১৯৯৭ সালের ২৬ শে ফেব্রুয়ারি ১০১ টি “বি” গ্রুপ এর অনির্দিষ্ট স্ক্রিপ অন লাইন বাণিজ্যে প্রকাশ করা হয়, এবং এটির উদ্বোধন করেছিলেন তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গের মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী শ্রী জ্যোতি বসু। পরবর্তী কালে “বি” শাখার বাকি স্ক্রিপ এবং অনুমোদিত শাখার স্ক্রিপ গুলি (আনুমানিক ৩৫০০ টি) স্থানান্তরিত করা হয় সি-স্টার সিস্টেমে এবং তা ৭ই মার্চ, ১৯৯৭ থেকে কার্যকারী হয়। পরিশেষে “এ” শাখার সমস্ত নির্দিষ্ট জমানত সি-স্টার পদ্ধতিতে স্থানান্তরিত করা হয় এবং তা কার্যকারী হয় ৪ঠা এপ্রিল ১৯৯৭ তে। পরিশেষে আনুমানিক ৯০ বছরের পুরনো বাণিজ্যিক পদ্ধতির পরিসমাপ্তি ঘটে। বিনিয়োগকারীদের কাছে অনলাইন বাণিজ্যি অনেক বেশি সুবিধেজনক কারন এটি সমস্ত প্রকার লেনদেনের ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ স্বচ্ছতা বজায় রাখে এবং এক্ষেত্রে সহজে ভুল সংশোধন করা হয় মূল কম্পুটারটির দ্বারা।